কেয়ামতের দিন আরশের ছায়াতলে অবস্থান করবেন যারা

ভূমিকা

প্রতিটি জীবনকে কোনো না কোনো সময় মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবেই। আজকে এই পৃথিবীতে আমরা যারা আছি তারা কেউ আর থাকবো না। সবাইকে একসময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তেই হবে। মৃত্যুর পরে আল্লাহর সামনে সবাইকে উপস্থিত হতে হবে। সেই মহান উপস্থিতির দিনকেই বলা হয় কেয়ামত দিবস বা বিচার দিবস। সেদিন সূর্য মানুষের মাথার উপরে থাকবে। যার ফলে অনেক পাপাচারীর মাথার মগজ টগবগ করে ফুটতে থাকবে। কিন্তু আল্লাহ তায়ালার প্রিয় বান্দা যারা, তারা থাকবে সম্পূর্ণ নিরাপদ। আল্লাহ তায়ালার আরশের নীচে ছায়া পাবে তারা। তারাই হবে সম্মানিত । আসুন আমরা হাদিসের আলোকে জেনে নিই কোন কোন ব্যক্তি হবেন সেই সৌভাগ্যের অধিকারী?

মূল হাদিস

عَن أَبي هُرَيرَةَ رضي الله عنه، عن النَّبيِّ ﷺ، قَالَ: « سَبْعَةٌ يُظِلُّهُمُ اللهُ في ظِلِّهِ يَوْمَ لاَ ظِلَّ إلاَّ ظِلُّهُ: إمَامٌ عَادِلٌ، وَشَابٌّ نَشَأ في عِبَادَةِ الله – عز وجل -، وَرَجُلٌ قَلْبُهُ مُعَلَّقٌ بِالمَسَاجِدِ، وَرَجُلاَنِ تَحَابّا في اللهِ اجْتَمَعَا عَلَيهِ وتَفَرَّقَا عَلَيهِ، وَرَجُلٌ دَعَتْهُ امْرَأةٌ ذَاتُ مَنصَبٍ وَجَمَالٍ، فَقَالَ: إنِّي أخَافُ الله، وَرَجُلٌ تَصَدَّقَ بِصَدَقَةٍ، فَأخْفَاهَا حَتَّى لاَ تَعْلَمَ شِمَالُهُ مَا تُنْفِقُ يَمِينُهُ، وَرَجُلٌ ذَكَرَ الله خَالِياً فَفَاضَتْ عَيْنَاهُ ». مُتَّفَقٌ عَلَيهِ .

আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু আনহু কর্তৃক বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ তাআলা সাত ব্যক্তিকে সেই দিনে তাঁর (আরশের) ছায়া দান করবেন যেদিন তাঁর ছায়া ব্যতীত আর কোন ছায়া থাকবে না; (তারা হল,) ন্যায় পরায়ণ বাদশাহ (রাষ্ট্রনেতা), সেই যুবক যার যৌবন আল্লাহর ইবাদতে অতিবাহিত হয়, সেই ব্যক্তি যার অন্তর মসজিদসমূহের সাথে লটকে থাকে (মসজিদের প্রতি তার মন সদা আকৃষ্ট থাকে।) সেই দুই ব্যক্তি যারা আল্লাহর সন্তুষ্টিলাভের উদ্দেশ্যে বন্ধুত্ব ও ভালোবাসা স্থাপন করে; যারা এই ভালোবাসার উপর মিলিত হয় এবং এই ভালোবাসার উপরেই চির বিচ্ছিন্ন (তাদের মৃত্যু) হয়। সেই ব্যক্তি যাকে কোন কুলকামিনী সুন্দরী (অবৈধ যৌন-মিলনের উদ্দেশ্যে) আহবান করে, কিন্তু সে বলে, আমি আল্লাহকে ভয় করি।’ সেই ব্যক্তি যে দান করে গোপন করে; এমনকি তার ডান হাত যা প্রদান করে, তা তার বাম হাত পর্যন্তও জানতে পারে না। আর সেই ব্যক্তি যে নির্জনে আল্লাহকে স্মরণ করে; ফলে তার উভয় চোখে পানি বয়ে যায়।’’
[বুখারি শরিফ ৬৬০, ১৪২৩, ৬৪৭৯, ৬৮০৬, মুসলিম শরিফ ১০৩১, তিরমিযি শরিফ ২৩৯১, নাসায়ি শরিফ ৫৩৮০, মুসনাদে আহমদ ৯৩৭৩, মুওয়াত্তা মালিক ১৭৭৭]

আল্লাহ তায়ালা আমাদের এই সাত প্রকারের মধ্যে কবুন করে নেন। আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

slieder

Featured Posts
July 2018
M T W T F S S
« Jun   Aug »
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  
সর্বসত্ত্ব সত্বাধীকারী- শায়খ আফতাব উদ্দিন ফারুক Ⓒ